ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ও ভাড়ার তালিকা

মধুমতি এক্সপ্রেস বাংলাদেশের একটি অন্যতম দ্রুতগামী এবং বিলাসবহুল আন্তঃনগর ট্রেন। আপনি কি ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ও ভাড়ার তালিকা অনলাইনে খুঁজছেন? তাহলে আজকের আর্টিকেলটি আপনার জন্য। আজকের আর্টিকেলে আলোচনা করা হয়েছে ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ও ভাড়ার তালিকা সহ যাবতীয় তথ্য।
ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ও ভাড়ার তালিকা
এই ট্রেনটি উন্নত যাত্রী সেবা এবং বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা প্রদান করার জন্য দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। তাই আপনাদের সুবিধার জন্য আজকের আর্টিকেলে ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ও ভাড়ার তালিকা এবং বিরতি স্টেশন, ছুটির দিনসহ সকল তথ্য আলোচনা করা হয়েছে।

পেজ সূচিপত্রঃ টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ও ভাড়ার তালিকা

ভূমিকা

বাংলাদেশ রেলওয়ের অন্তর্গত অনেক সুযোগ সুবিধা সহিত আন্তর্জাতিক মানের একটি পরিবহন সেবা হচ্ছে মধুমতি এক্সপ্রেস। অনেক লোক ট্রেনে ভ্রমণ করতে ভালোবাসেন, কারণ বাসে যাতায়াত করতে অসুবিধা হয়ে থাকে এবং ট্রাফিক জামে ফাঁকা হয়না। এর ফলে সময় নষ্ট হয় এবং ভ্রমণকারীরা ভোগান্তিতে পড়েন ।
আরও একদিকে ট্রেন যাত্রা অনেকটা সহজ এবং সুবিধাজনক, কারণ ট্রেনগুলি নির্দিষ্ট সময়ে গন্তব্যে পৌঁছায়। আজকের আর্টিকেলটি ট্রেন ভ্রমনকারীদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমরা এখানে মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সম্পর্কে আলোচনা করব।

যারা এই ট্রেনে ভ্রমণ করতে চান এবং টিকিট মূল্য ও সময়সূচী সম্পর্কে জানতে আগ্রহী, তাদের জন্য এই আলোচনা থেকে উপকৃত হতে পারবেন। আপনি এখানে এই ট্রেনের সমস্ত তথ্য পেতে পারবেন।

ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেন সম্পর্কে সংক্ষেপে

মধুমতি এক্সপ্রেস (ট্রেন নাম্বার- ৭৫৫/৭৫৬) বাংলাদেশ রেলওয়ের আওতাধীন চলাচল করা একটি আন্তঃনগর ট্রেন। এই ট্রেনটি রাজশাহী থেকে শুরু হয়ে ভাঙ্গা ও শিবচরে পদ্মা সেতু দিয়ে ঢাকা রুটে চলাচল করে। এই ট্রেনটি ২০০৩ সালে ১৫ ই আগস্টে রাজশাহী - ভাঙ্গা রুটে চলাচল শুরু করে, পরবর্তীতে তার পথচলা ঢাকা পর্যন্ত প্রসারিত হয়। এটি রাজশাহী - ঢাকা রুটের পঞ্চম ট্রেন হিসেবে অবদান রাখে। এই ট্রেনের কিছু বৈশিষ্ট্য নিম্নরূপঃ
উদ্ভাবনঃ ট্রেনটির সময়সূচি ১৫ ই আগস্ট, ২০০৩ সালে প্রথম বার ঘোষণা হয়েছে এবং এর মাধ্যমে রাজশাহী থেকে ঢাকা যাত্রা শুরু হয়েছে।

রুটঃ এই ট্রেনটি রাজশাহী থেকে শুরু হতে হয় এবং ভাঙ্গা ও শিবচরের মাধ্যমে পদ্মা সেতু দিয়ে ঢাকা পর্যন্ত পৌঁছাতে সহায়ক হয়।

ট্রেন নাম্বারঃ এই ট্রেনটির নাম্বার হচ্ছে ৭৫৫/৭৫৬।

উদ্যোগী সেবাঃ ট্রেনটি বাংলাদেশ রেলওয়ের একটি উদ্যোগী এবং বিলাসবহুল ট্রেন।

সুবিধা ও কমফর্টঃ ট্রেনটি যাত্রীদের জন্য শান্তিপূর্ণ এবং সুবিধাজনক যাত্রা প্রদান করে।

সময়সূচীঃ ট্রেনটির সময়সূচী যাত্রীদের উপযোগী এবং আগ্রহীদের জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী

আপনারা যারা অনলাইনে মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী খুঁজতে আমাদের ওয়েবসাইটে এসেছেন তাদের জন্য এখান থেকে ট্রেনটির সময়সূচী দেখতে পারেন। এখানে সময়সূচি দেওয়া হয়েছে , এটি দেখে তারা সময় নির্ধারণ করতে পারেন ট্রেন ভ্রমণ করার সিদ্ধান্ত নেবেন কি না।এই ট্রেনের সময়সূচী নিচে দেওয়া হলো।
ট্রেন নংঃ ৭৫৫
  • প্রস্থানঃ ঢাকা
  • প্রস্থানের সময়ঃ ১৫ঃ০০
  • গন্তব্যঃ রাজশাহী
  • গন্তব্যে পৌঁছানোর সময়ঃ ২২ঃ৪০
  • সাপ্তাহিক ছুটিঃ বৃহস্পতিবার
ট্রেন নংঃ ৭৫৬
  • প্রস্থানঃ রাজশাহী
  • প্রস্থানের সময়ঃ ০৬ঃ৪০
  • গন্তব্যঃ ঢাকা
  • গন্তব্যে পৌঁছানোর সময়ঃ ১৪ঃ০০
  • সাপ্তাহিক ছুটিঃ বৃহস্পতিবার
উল্লেখিত সময়সূচী ট্রেন নম্বর ৭৫৫ এবং ৭৫৬ এর জন্য প্রযোজ্য। যাত্রীরা এই সময়সূচী উপর ভিত্তি করে ট্রেনে সঠিক সময়ে যাত্রা করতে পারেন এবং তাদের ভ্রমণকে সুবিধাজনক এবং সুন্দরভাবে পরিচালিত করতে পারেন।

ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের ভাড়ার তালিকা

বাংলাদেশের একটি আন্তঃনগর ট্রেন হচ্ছে মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেন । এই ট্রেনে সকল শ্রেণি এবং আসনের বিকল্প রয়েছে, যা যাত্রীদের বিভিন্ন স্বচ্ছতা এবং মানসম্মত বাছাই করতে সাহায্য করে। এই সকল শ্রেণি ও আসন গুলো অনুযায়ী ভাড়া নির্ধারিত হয় । ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের ভাড়ার তালিকাঃ
  • শোভন ৩৯৫ টাকা
  • শোভন চেয়ার ৪৭০ টাকা
  • ফার্স্ট ক্লাস সিট ৭১৯ (ভ্যাট সহ)
এই ভাড়ার তালিকা মূলত আসন বিভাগের ভিত্তিতে ভাগ করা হয়েছে এবং টিকেটে যোগদানকৃত ১৫% ভ্যাট এবং অন্যান্য সহায়ক খরচের সাথে মিলে তৈরি হয়েছে। এই তালিকা দেখে যাত্রীরা তাদের পছন্দমত শ্রেণি এবং আসন বাছাই করতে পারেন এবং ভ্রমণের সুবিধা নিতে পারেন।

ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের বিরত স্টেশন সমূহ

এই ট্রেনটিতে বিভিন্ন ধরনের আসনে আরামদায়ক এবং বিলাসবহুল ভাবে যাতায়াত করার সুযোগ রয়েছে। ট্রেনে ভ্রমণ করলে অধিকাংশ মানুষ ক্লান্তি অনুভব করেন না। অন্যান্য যাতায়াত মাধ্যম থেকে যাত্রার সময়ে দুর্ঘটনার সম্ভাবনা অনেক কম। ট্রেন ভ্রমণের মাধ্যমে নিরাপদ সফর করা সম্ভব।এই ট্রেনের বিরতির স্থানগুলো দেখতে পারেন এবং আপনার ভ্রমণ অভিজ্ঞতাকে সুন্দর করতে পারেন। বিরত স্টেশন সমূহ নিম্নরুপঃ
  • কমলাপুর
  • মাওয়া
  • পদ্মা
  • শিবচর
  • ভাঙ্গা
  • পুখুরিয়া
  • তালমা
  • ফরিদপুর
  • আমিরাবাদ
  • পাচুরিয়া
  • রাজবাড়ী
  • কালুখালী জংশন
  • পাংশা
  • খোকসা
  • কুমারখালী
  • কুষ্টিয়া কোর্ট
  • পোড়াদহ
  • মিরপুর
  • ভেড়ামারা
  • পাকশী
  • ঈশ্বরদী জংশন
  • রাজশাহী
ব্রেকডাউন, টেকনিক্যাল সমস্যা, দুর্ঘটনা, নাগরিক অসুস্থতা, বৃষ্টি-বাতাস এবং অন্যান্য একাধিক কারণে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃক ট্রেনের যাত্রাবিরতি পরিবর্তিত হতে পারে। তবে উপরিউক্ত তালিকাটি অনির্দিষ্টকালের কালের জন্য কার্যকর ।

ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের ছুটির দিন সমূহ

ট্রেন ভ্রমণের ক্ষেত্রে ছুটির দিন সম্পর্কে ধারণা রাখা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ট্রেন বন্ধের দিন জানা থাকলে ট্রেন ভ্রমণের পরিকল্পনার ক্ষেত্রে অনেক সুবিধা হয়। ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের ছুটির দিন সমূহ নিম্নরূপঃ
স্টেশনের নামঃ ঢাকা টু রাজশাহী
ছুটির দিনঃ বৃহস্পতিবার
স্টেশনের নামঃ রাজশাহী টু ঢাকা
ছুটির দিনঃ বৃহস্পতিবার
এই ছুটির দিনগুলি ট্রেনটি চলতে পারে না অথবা সময়সূচি পরিবর্তন হতে পারে, অতএব ভ্রমণের আগে নিজের সুবিধার জন্য সর্বশেষ তথ্য জানতে বাংলাদেশ রেলওয়ে ওয়েবসাইট দেখতে পারেন।

আজকের আর্টিকেলে সচরাচর প্রশ্ন

প্রশ্নঃ ট্রেন কোথা থেকে ছেড়ে যায় এবং কোথায় পৌঁছায়?
উত্তরঃ ট্রেনটি চলাচল করে ঢাকা থেকে রাজশাহী এবং রাজশাহী থেকে ঢাকা। এই ট্রেনটি দুই শহর মধ্যে প্রধান যাতায়াত সংযোজন করে এবং মধ্যভাগে প্রায় সকল প্রধান রেলওয়ে স্টেশনে থামে।
প্রশ্নঃ মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচি কী?
উত্তরঃ ঢাকা টু রাজশাহীঃ প্রস্থানের সময়ঃ ১৫ঃ০০, গন্তব্যে পৌঁছানোর সময়ঃ ২২ঃ৪০
রাজশাহী টু ঢাকাঃ প্রস্থানের সময়ঃ ০৬ঃ৪০, গন্তব্যে পৌঁছানোর সময়ঃ ১৪ঃ০০
প্রশ্নঃ মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনে কতগুলি স্টপেজ আছে?
উত্তরঃ মোট ২২ টি স্টপেজ আছে।
প্রশ্নঃট্রেনের ছুটির দিন কী কী রয়েছে?
উত্তরঃ ঢাকা টু রাজশাহী এবং রাজশাহী টু ঢাকা সাপ্তাহিক ছুটির দিন বৃহস্পতিবার।
প্রশ্নঃ এই ট্রেনটিতে আসন বিভাগ কি কি রয়েছে?
উত্তরঃ ট্রেনের আসন বিভাগ শোভন , শোভন চেয়ার , প্রথম শিট রয়েছে।
প্রশ্নঃ মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রা করার জন্য টিকেট কীভাবে কিনতে হয়?
উত্তরঃ মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রা করার জন্য টিকেট কিনতে আপনি নিকটবর্তী রেলওয়ে স্টেশনে যেতে পারেন এবং সেখান থেকে টিকেট কিনতে পারেন বা বাংলাদেশ রেলওয়ের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট বা মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করতে পারেন।

শেষ কথাঃ ঢাকা টু রাজশাহী মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ও ভাড়ার তালিকা

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেন নিয়ে এই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ার জন্য ধন্যবাদ।
আশা করি, এই আর্টিকেলটি এই ট্রেনটির যাত্রীদের জন্য উপকারী হবে এবং তাদের সঠিক সময়সূচি এবং আসনের তথ্য প্রদান করবে। আপনাদের সহযোগিতা এবং সহানুভূতির জন্য কৃতজ্ঞ।

যদি কোন অতিরিক্ত তথ্য প্রয়োজন হয় বা কোন প্রশ্ন থাকে, অনুগ্রহ করে নিচে মন্তব্য করুন। আমরা সহায় করতে আগ্রহী থাকব।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url